মানসিক স্বাস্থ্য

আমি এবং আমার বন্ধু ডিপ্রেশন

Written by Maya Expert Team

“মাঝে মাঝে আমার খুবই একা লাগে। মনে হয় আমার আশেপাশে কেউই নেই। মনের কথা বলার জন্য কাউকে পাই না। গত মাস পুরোটাই কাটিয়েছি বাসার মধ্যে একা  একা বসে থেকে। বাসা থেকে এক দিনও বের হইনি, ভালো লাগে না কিছুই। পুরোপুরি বিষন্নতায় ডুবে গিয়েছি। নিজেকে একটি ঘিরে ভিতর আটকে ফেলেছি।” কথা গুলো বলছিলো একটি প্রাইভেট ইউনিভার্সিটির ছাত্র (বয়স ২৬)। নিজেকে বিষন্নতায় ডুবিয়ে ফেলেছে বের হওয়ার কোন উপায় খুঁজে পাচ্ছে  না। তার মত এরকম অনেকে আছে যারা ইয়ং বয়সে বিষন্নতায় ডুবে যাচ্ছে । যখন তাদের পড়ালেখা করে জীবনে এগিয়ে যাওয়ার সময়, তখন তারা লড়াই করছে বিষন্নতার সাথে। 

 

অনেকে মনে করছে এটাই জীবন, এর থেকে বের হওয়ার কোনো উপায় নেই। বিষন্নতা জীবনের একটি অংশ, কিন্তু এটা মোটেও পুরো জীবন নয়। জীবন অনেক সুন্দর। বিষন্নতা ইয়ং জেনারেশনের কাছে ডিপ্রেশন নাম পরিচিত। আমি ডিপ্রেসেড, আমি ডিপ্রেশনে থাকি, এই কথা গুলো অনেক তরুনের জীবনের সাথে জড়িয়ে গেছে। ডিপ্রেশন যেন তাদের বন্ধু হয়ে গেছে। কিন্তু তা মোটেও হতে পারে না। ডিপ্রেশন যেমন জীবনে আসে তেমন এর থেকে মুক্তি পাওয়ারও উপায় আছে। জীবনের কিছু কিছু জিনিস একটু এড়িয়ে গেলেই বোঝা যায় জীবন কত সুন্দর। 

 

ডিপ্রেশন কি? কেন এই ডিপ্রেশন? কি ভাবে পাবো মুক্তি? 

 

ডিপ্রেশন একটি সাধারণ ব্যাপার। জীবনে বিভিন্ন সময়ে ডিপ্রেশন আসতে পারে। যদি কারো সব সময় মন খারাপ থাকে, জীবনের আনন্দ হারিয়ে ফেলে, কোনো কাজেই আগ্রহ পায় না, কোনো অনুভূতিই তাকে উৎসাহিত করে না এবং এই লক্ষণগুলো যদি ২ সপ্তাহের বেশি সময় ধরে দেখা যায়, তাহলে ধরে নিতে হবে সে ডিপ্রেসড। ডিপ্রেশন  যদি মাত্রা অতিক্রম করে যায় এবং ডিপ্রেশনের কারণে যদি দৈনিক কার্যক্রম বাধাগ্রস্ত হয়, তাহলে এটা মানসিক রোগ হিসাবে ধরতে হবে। তখন, এই ডিপ্রেশন কমানোর জন্য কার্যকরী পদ্ধক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে।

 

কিভাবে বুঝবেন আপনি ডিপ্রেসেড? 

 

 ১. সব সময় মন খারাপ থাকবে 

২. কোনো কিছুতে আগ্রহ পাবেন না, জীবনের আনন্দ উপভোগ করতে পারবেন না 

৩. হঠাৎ ওজন বাড়তে থাকবে অথবা কমতে থাকবে 

৪. ঘুম আসবে না কিংবা একবার ঘুমালে আর উঠতে ইচ্ছা হবে না 

৫. জীবনের গতি কমে যাবে, কোনো কিছু করতেই ভালো লাগবে না 

৬. নিজেকে দোষী মনে হবে 

৭. বেঁচে থাকার আগ্রহ কমে আসবে 

 

উপরের লক্ষণ গুলো যদি ২ সপ্তাহের বেশি সময় ধরে থাকে তাহলে ধরে নিতে হবে আপনার ডিপ্রেশন মানসিক রোগে পরিণত  হয়েছে এবং আপনার এখন ট্রিটমেন্ট করানো জরুরি।

 

কেন এই ডিপ্রেশন? 

 

ডিপ্রেশন হতে পারে নানান কারণে। জীবনে চলার পথে অনেক এমন কিছু ঘটনা ঘটে যা আমাদেরকে মানসিক ভাবে আঘাত করতে পারে। যেমন: 

১. কাছের কারো মৃত্যু 

২. খুব কাছের কারো সাথে সম্পর্ক ভেঙে গেলে 

৩. জীবনে কোন অপ্রিয় ঘটনা ঘটলে 

৪. চাকুরী হারালে 

৫. ব্যবসায় লস হলে  

৬. নিজের ভিতরের অনুভূতিগুলো কাউকে না বলতে পারলে

 

এই রকম আরো অনেক কারণেই আপনি ডিপ্রেশনে পড়তে পারেন। 

 

কিভাবে পাবো মুক্তি? 

 

ডিপ্রেশন একটি মানসিক রোগ। এই জন্য সাধারণ জীবন যাপনে বাধা আসতে পারে। এর থেকে অবশ্যই মুক্তির পথ আছে। 

 

ডিপ্রেশন থেকে মুক্তি পাওয়ার জন্য আপনি যা যা করতে পারেন:

১. আপনার কাছের মানুষের সাথে আপনার কষ্টগুলো শেয়ার করুন, কখনোই ডিপ্রেশন নিজের মনে পুষে রাখবেন না, কাছের মানুষের সাথে যত কথা বলবেন ততোই হালকা হবেন।  

২. নিজেকে একটু সময় দিন। নিজের পছন্দের কাজ গুলো করুন। গান শুনতে পারেন, ছবি আঁকতে ভালো লাগলে ছবি আঁকতে পারেন। ভালো মুভি দেখতে পারেন। আপনার যেই কাজটি করতে ভালো লাগে সেই কাজটি করুন। 

৩. বন্ধুদের সাথে থাকার চেষ্টা করুন। 

৪. যে বিষয়গুলো ভাবলে মন খারাপ হয়, সেই বিষয়গুলো ভাবা থেকে বিরত থাকুন। মনে রাখবেন জীবন অনেক সুন্দর। জীবনে কিছু খারাপ ঘটনা ঘটতেই পারে। অযথা ভেবে-ভেবে হতাশ হবেন না।

৫. মেডিটেশন করুন। মেডিটেশন মন ভালো রাখে। YouTube -এ অনেক মেডিটেশনের ভিডিও আছে। সেখান থেকে মেডিটেশন করার উপায় গুলো দেখে নিতে পারেন।

৬. নিয়মিত শারীরিক পরিশ্রম করুন। 

৭. জীবনে একটি রুটিন মেনটেইন করুন, সময় মতো খাওয়া দাওয়া করবেন, ঘুমাতে যাবেন, ঘুম থেকে উঠবেন। এতে কঠিন পরিস্থিতি মোকাবিলা করা সহজ হবে।  

৮. পরিবারের সাথে আপনার সমস্যা শেয়ার করতে পারেন। পরিবারের সাথে বেশি বেশি সময় কাটান।

৯. বাইরে ঘুরতে যান, নতুন নতুন জায়গায় ট্রাভেল করুন। নিজেকে একা ঘরে বন্দী করে রাখবেন না। এতে আপনি আরো হতাশ বোধ করবেন।  

১০. অনেক ডিপ্রেসেড লাগলে মায়া এপে প্রশ্ন করতে পারেন। আপনার পরিচয় গোপন থাকবে। এক্সপার্টরা আপনার প্রশ্নর উত্তর দিয়ে আপনাকে সাহায্য করবেন।   

১১. কিছুতেই যদি আপনার ডিপ্রেশন কন্ট্রোল না হয় তাহলে প্রফেশনাল হেল্প নিন। যেমন, কাউন্সিলর, সাইকোলজিস্ট বা সাইকিয়াট্রিস্ট।  

 

সবার জীবনে মন খারাপ একটি স্বাভাবিক জিনিস। কিন্তু এর একটা মাত্রা আছে। এই মাত্রাটা যদি অতিক্রম করে তাহলে অবশ্যই কার্যকরী পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে। মনে রাখতে হবে, ডিপ্রেশন একটি রোগ। নিজের ইচ্ছা থাকলে আমরা নিজেকে ডিপ্রেশন থেকে বের করার লক্ষ্যে কাজ করতে পারবো। জীবন অনেক সুন্দর, জীবনকে উপভাগ করতে আমাদের কাজ করতে হবে। 

 

***মায়ার সাথে থাকুন, সুস্থ থাকুন***

শারীরিক, মানসিক, লাইফস্টাইল বিষয়ক সমস্যায় প্রশ্ন করুন Maya অ্যাপ থেকে।

অ্যাপের ডাউনলোড লিঙ্কঃ http://bit.ly/2WkzaYR

About the author

Maya Expert Team

Leave a Comment