ভিটামিন বি এবং সি

ভিটামিন বি এবং সি
এই বিভাগে আমরা ভিটামিন B ও C‘র সুবিধা, উৎস, অতিরিক্ত ভিটামিন B এবং C গ্রহণের ফলাফল নিয়ে আলোচনা করবো। এই ভিটামিন দুটি পানিতে-দ্রবনীয়। গর্ভাবস্থায় এই ভিটামিনের প্রয়োজনীয়তা সম্পর্কেও উল্লেখ করা হয়েছে এখানে।

ভিটামিন B

ভিটামিন B অনেক রকম হতে পারে। নিচে তা নিয়ে আলোচনা করা হলঃ

  • ভিটামিন B6
  • ভিটামিন B12
  • নিয়াসিন (ভিটামিন B3)
  • রিবোফ্লাভিন (ভিটামিন B2)
  • থায়ামিন (ভিটামিন  B1)
  • ফলিক এসিড (B-গ্রুপের একটি ভিটামিন)


ভিটামিন B6
ভিটামিন B6 পায়রোডক্সিন নামেও পরিচিত। এটা শরীরকে শর্করা থেকে শক্তি এবং প্রোটিন সঞ্চয় করতে সাহায্য করে। এটা হিমোগ্লোবিনকেও সাহায্য করে। এটি এমন একটি পদার্থ যা শরীরের চারপাশে অক্সিজেন বহন করে।

ভিটামিন B6 এর উৎস
● মুরগী
● রুটি
● ওটমীল
● আলু
● দুধ
● রুটি চীনাবাদাম
● শাক-সব্জি
● ডিম


ভিটামিন B6 এবং গর্ভাবস্থা 
ভিটামিন B6 আপনার শরীরকে ফ্যাট, আমিষ এবং শর্করা বিপাকে সাহায্য করে। এটা নতুন রক্ত কোষ, অ্যান্টিবডি এবং নিউরোট্রান্সমিটার তৈরী করতে গুরুত্বপূর্ন ভূমিকা পালন করে থাকে। বাচ্চার মস্তিষ্ক এবং স্নায়ুতন্ত্র গঠনে অপরিহার্য ভূমিকা পালন করে থাকে। একজন গর্ভবতী মহিলার ১.৯ মিলিগ্রাম এবং একজন স্তন্যদানকারী মহিলার দৈনিক ২.0 মিলিগ্রাম ভিটামিন B6 প্রয়োজন হয়।

অতিরিক্ত ভিটামিন B6 কি ক্ষতি করতে পারে?
প্রতিদিন ভিটামিন B6 এর ২০০ মিলিগ্রাম ভিটামিন এর চেয়েও বেশী নিলে অথবা অনেক বেশী পরিমানে নিয়ে থাকলে এটা বাহু এবং পায়ের অনুভূতী কমিয়ে ফেলতে পারে, যা পেরিফেরাল নিউরোপ্যাথি নামে পরিচিত। আপনি যদি একবার এই সাপ্লিমেন্ট নেওয়া বন্ধ করে দিন, এই উপসর্গ সাধারনত বন্ধ হয়ে যাবে। তবে, কিছু ক্ষেত্রে, যখন মানুষ বেশি পরিমান ভিটামিন B6 নিয়ে থাকে, বিশেষ করে, কয়েক মাসের বেশী হলে, এর প্রভাব বিপরীত হয়।

১০-২০০ মিলিগ্রাম ডোজ একদিনে স্বল্প মেয়াদী ভাবে নিয়ে থাকলে কোন ক্ষতি করবেনা। তবে, এই সময়কাল ধরে এটি নিরাপদ ভাবে নেওয়া যাবে এরকম কোন শক্ত প্রমান পাওয়া যায়নি। পুরুষদের জন্য প্রতিদিন ভিটামিন  B6 ১.৪ মিলিগ্রাম এবং মহিলাদের জন্য প্রতিদিন ১.২ মিলিগ্রামের প্রয়োজন হয়।

ভিটামিন B12
ভিটামিন B12 লোহিত রক্ত কনিকা তৈরী করে এবং স্নায়ুতন্ত্রকে সুস্থ রাখে। এটা অবশ্য খাবার থেকে শক্তি সঞ্চয় করে এবং ফলিক এসিড তৈরী করে। এই ভিটামিনের অভাব ভিটামিন B12-এর রক্তাল্পতা তৈরী করতে পারে।

ভিটামিন  B12 এর উৎস
● মাংস
● দুধ
● পনির
● ডিম

ভিটামিন B12 এবং গর্ভাবস্থা
গর্ভবতী মহিলাদের ভিটামিন B12 গ্রহণ তুলনামূলকভাবে বাড়ানো প্রয়োজন। এর মধ্যম মাত্রার অভাব গর্ভাবস্থায় প্রচলিত এবং এর জন্য চিন্তার কোন কারন নেই তবে ভিটামিন B12 এর গুরুতর অভাব মা এবং বাচ্চার জন্য মারাত্নক সমস্যা তৈরী করতে পারে।

অতিরিক্ত ভিটামিন B12 ক্ষতিকর হতে পারে?
ভিটামিন B12 এর উচ্চ ডোজ নিলে কি কি প্রভাব হতে পারে তা দেখানোর জন্য যথেষ্ট প্রমানাদি নেই। তবে, প্রাপ্তবয়স্কদের একদিনে প্রায় ০.০০১৫ মিলিগ্রাম ভিটামিন B12 প্রয়োজন।

ভিটামিন  B3 (নিয়াসিন)
ভিটামিন B3 এর কিছু কাজ আছে শরীরে, যেমন; খাবার থেকে শক্তি উৎপন্ন করা এবং স্নায়ুতন্ত্র এবং পরিপাকতন্ত্রকে সুস্থ রাখা।

ভিটামিন B3 এর উৎস
● মাংস
● মাছ
● গমের ফুল
● ভুট্টার ফুল
● ডিম
● দুধ

ভিটামিন B3 এবং গর্ভাবস্থা
ভিটামিন  B3 আপনার শিশুর উন্নতির জন্য প্রয়োজনীয়। তবে, অতিরিক্ত ভিটামিন B3 প্রথম ১২ সপ্তাহের গর্ভাবস্থায় জন্ম ঝুঁকিতে ফেলে দিতে পারে। গর্ভাবস্থায় অথবা স্তন্যদানকারী অবস্থায় সাপ্লিমেন্টের প্রয়োজন নেই।

অতিরিক্ত ভিটামিন  B3 কি ক্ষতিকর হতে পারে?
উচ্চ মাত্রার নিকোটিনিক এসিড এর সাপ্লিমেন্ট নিয়ে থাকলে ত্বক উদ্দীপ্ত হতে পারে। দীর্ঘদীন ধরে উচ্চ মাত্রার ডোজ নিয়ে থাকলে তা যকৃতকে বিকল করে দিতে পারে। নিকোটিনামাইড সাপ্লিমেন্টের উচ্চ ডোজ প্রত্যেকদিন  নিলে কি কি প্রভাব হতে পারে তা দেখানোর জন্য যথেষ্ট প্রমানাদি নেই। তবে, পুরুষদের জন্য প্রয়োজনীয় ভিটামিন B3 এর পরিমান ধরা হয় প্রতিদিন ১৭ মিলিগ্রামের এবং মহিলাদের জন্য ১৩ মিলিগ্রাম। আপনার সব গুলো ভিটামিন B3 (নিয়াসিন) নেওয়া প্রয়োজন যা আপনার প্রত্যেক দিনের ডায়েট থেকে পাওয়া যায়।

ভিটামিন B2 (রিবোফ্লাভিন)
ভিটামিন B2 অথবা রিবোফ্লাভিন ত্বক, চোখ এবং স্নায়ুতন্ত্রকে সুস্থ রাখে। এটা স্টেরয়েড এবং লোহিত রক্ত কনিকা তৈরী করতে সাহায্য করে।

ভিটামিন  B2 এর উৎস
● ডিম
● ভাত
● মাশরুম

ভিটামিন B2 এবং গর্ভাবস্থা
ভিটামিন B2 আপনার শরীরকে শক্তি উৎপন্ন করতে সাহায্য করে। এটা আপনার বাচ্চার হাড়, মাংশপেশী, এবং স্নায়ু গঠনের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ন । গবেষনায় দেখা যায় যে, যেসব মহিলাদের যথেষ্ট রিবোফ্লাভিন নেন না তাদের রক্তচাপের আশংকা থাকতে পারে।

অতিরিক্ত ভিটামিন B2 (রিবোফ্লাভিন) ক্ষতিকর হতে পারে?
প্রত্যেকদিন রিবোফ্লাভিনের উচ্চ ডোজ নিলে কি কি প্রভাব হতে পারে তা প্রমানের জন্য যথেষ্ট প্রমানাদি নেই। তবে, প্রতিদিন  ১.৩ এবং ১.১ মিলিগ্রাম যথাক্রমে পুরুষ এবং মহিলাদের জন্য প্রয়োজনীয়।


ভিটামিন  B1 (থায়ামিন)
ভিটামিন B1 থায়ামিন হিসেবে পরিচিত। এটা অন্যান্য B-গ্রুপের ভিটামিনের সাথে মিলে সাহায্য করে খাদ্য থেকে শক্তি নির্গমন করার জন্য। এটা স্নায়ু এবং পেশির টিস্যু কে সুস্থ রাখে।

ভিটামিন B1 এর উৎস
● শাক-সব্জি
● দুধ
● পনির
● ডাল
● সজিব এবং শুকনো ফল
● ডিম

ভিটামিন B1  এবং গর্ভাবস্থা
স্নায়ু তন্ত্র এবং বাচ্চাদের অন্যান্য অঙ্গ গঠনের জন্য থায়ামিন প্রয়োজন। অতএব, থায়ামিনের প্রয়োজনীয়তা গর্ভাবস্থায় এবং স্তন্যদানকারী অবস্থায় (১.৩ মিলিগ্রাম) আরো বেশী। তবে, গর্ভবতী মহিলাদের অতিরিক্ত সাপ্লিমেন্টের প্রয়োজন নেই যেহেতু তারা ডায়েটের মধ্যেই এটা পাচ্ছেন।

অতিরিক্ত ভিটামিন  B1 কি ক্ষতিকর হতে পারে?
ভিটামিন  B1 এর বিষাক্ততা খুবই কম। তবে, এটা অন্যান্য ভিটামিন B কমিয়ে ফেলতে পারে এবং থায়রয়েডের অথবা ইনসুলিনের মত হরমোন উৎপাদন কমিয়ে ফেলতে পারে। তবে, পুরুষ এবং মহিলাদের ক্ষেত্রে যথাক্রমে ১ মিলিগ্রাম এবং ০.৮ মিলিগ্রাম ভিটামিন B1 প্রতিদিন নেওয়া উচিত।


ফলিক এসিড
ফলিক এসিড, প্রাকৃতিকভাবে ফলেট বলা হয়, বি গ্রুপের একটি ভিটামিন। ফলেটের কিছু গুরুত্বপূর্ন কাজ আছে, উদাহরনস্বরুপ, এটা একসাথে ভিটামিন B12 এর সাথে কাজ করে স্বাস্থ্যকর লোহিত রক্ত কনিকা তৈরী করতে এবং সেন্ট্রাল নার্ভাস সিস্টেমের সমস্যা (যেমনঃ জন্ম না নেওয়া বাচ্চাদের স্পাইনা বাইফিডা) – এর ঝুঁকি কমাতে সাহায্য করে।

ফলিক এসিডের উৎস
● ব্রকলি
● ডাল
● ছোলা

ফলিক এসিড এবং গর্ভাবস্থা
গর্ভাবস্থার আগে ফলিক এসিড গ্রহণ প্রসব সংক্রান্ত সমস্যা গুলো থেকে রক্ষা করে। অনেক গবেষনায় দেখা যায় যে যেসব মহিলারা এটি ৪০০ মাইক্রোগ্রামের চেয়ে কম গ্রহণ করেন তাদের বাচ্চার মারাত্নক নিউরাল টিউবের সমস্যা নিয়ে জন্মানোর ঝুঁকিতে থাকে।

অতিরিক্ত ফলিক এসিড কি ক্ষতিকর হতে পারে?
যদি আপনার পর্যাপ্ত ভিটামিন B12 না থাকে, ফলিক এসিডের ১ মিলিগ্রামের উচ্চমাত্রার  ডোজ নিয়ে এই প্রভাব কমিয়ে আনা যায়। ভিটামিন  B12 এর একটি উপসর্গ হল রক্তশূন্যতা। তবে, অনেক ফলিক এসিড রক্তাল্পতার চিকিৎসা করে ভিটামিন B12 এর স্বল্পতার চিকিৎসা ছাড়াই। যদি ভিটামিন B12 এর অভাব খেয়াল করা না হয়, তবে এটা স্নায়ুতন্ত্রকে বিকল করে দিতে পারে।


ভিটামিন C

ভিটামিন C এর সুবিধা :

● রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা-  ভিটামিন C আমাদের রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতার একটি সাধারন উপাদান। এটা কোলাজেন এর জন্য প্রয়োজনীয়, প্রধান গাঠনিক প্রোটিন হল কানেকটিভ টিস্যু। ভিটামিন C ক্ষতকে ঠিক করতে সাহায্য করে এবং তাদের কোষকে রক্ষা করে এবং তাদের স্বাস্থ্য রক্ষা করে। ভিটামিন সি এর অভাবস্কার্ভি রোগের কারন হতে পারে।
●সাধারণ ঠান্ডা – এটা রোগপ্রতিরোধ ব্যবস্থার সাথে সাথে ব্যাকটেরিয়ার বিপক্ষে কাজ করে, ভাইরাস এবং সংক্রামন, ভিটামিন সি একটি কার্যকরী এন্টিহিস্টামিন হিসেবে কাজ করে যা ঠান্ডা, প্রদাহ, শ্বাসরোধী নাকের খারাপ প্রভাবকে অবনমিত করে।
● এন্টিঅক্সিডেন্ট- ভিটামিন C একটি এন্টিঅক্সিডেন্ট যা আমাদের শরীরকে ফ্রি রেডিকেলস থেকে রক্ষা করে যা অক্সিডেটিভ চাপের কারন হয়। অতিরিক্ত অক্সিডেটিভ চাপ হৃদরোগ, স্ট্রোক, এবং ক্যান্সারের কারন হতে পারে। ভিটামিন সি ভিটামিন ই এর সরবারহ কে পুনরুজ্জীবিত করে।
● হাইপার-টেনশন – ভিটামিন C নিম্ন রক্তচাপের কারন হতে পারে এবং অতএব হাইপার-টেনশন সহ হৃদরোগের সম্ভাবনা কমায়।
● রক্তনালী – ভিটামিন C যথাযথ রক্তনালীর প্রসারন নিশ্চিত করে যা এথেরোস্ক্লেরোসিস, উচ্চ কলেস্টেরল, হার্ট ফেইলর, এবং অ্যাঞ্জিনা পেকটোরিস (অপর্যাপ্ত রক্ত প্রবাহ যা বুকে গুরুতর ব্যাথা তৈরি করে) থেকে রক্ষা করে।
● সীসার বিষ – সীসা আমাদের শরীরের জন্য বিষাক্ত। ভিটামিন সি আমাদের রক্তে এর লেভেল কমায়। গ্রামের বাচ্চারা প্রায়ই আচরনগত এবং গঠনগত সমস্যায় ভুগে, যেমন অক্ষম হয় এবং নিম্ন বুদ্ধিমত্তা থাকে, বৃক্ক বিকল হয়, এবং উচ্চ রক্তচাপ দেখা যেতে পারে প্রাপ্ত বয়স্ক হলে।

ভিটামিন C এবং গর্ভাবস্থা
ভিটামিন C (এস্করবিক এসিড) টিস্যু গঠনের জন্য প্রয়োজন, ক্ষত নিরাময়, হাড়ের গঠন এবং বৃদ্ধি, স্বাস্থ্যকর ত্বক ইত্যাদি গঠনে প্রয়োজন। কিন্তু মা এবং বাচ্চা উভয়েরই প্রতিদিন ভিটামিন সি প্রয়োজন। ভিটামিন সি বাচ্চাদের কোলাজেন গঠনে সাহায্য করে, কোলাজেন হল গাঠনিক প্রোটিন যা
কার্টিলেজ, টেন্ডন, হাড়, এবং ত্বকের  উপাদান। ভিটামিন সি এর অন্য গুরুত্বপূর্ন বৈশিষ্ট্য হল আয়রন শোষন করা। ভিটামিন সি আপনার খাবার বেশিরভাগ আয়রন শোষনে সাহায্য করবে।

ভিটামিন সি এর উৎস
● কমলা
● লেবু
● মুরগীর যকৃত
● পেয়ারা
● পেপে
● স্ট্রবেরী
● মিষ্টি আলু
● ব্রকলি

অতিরিক্ত ভিটামিন সি কি ক্ষতি করতে পারে?
অতিরিক্ত ভিটামিন সি এর কারণে যা হতে পারেঃ

● পাকস্থলী ব্যথা
● ডায়ারিয়া
● পেট ফাপা

আপনি ভিটামিন সি সাপ্লিমেন্ট নেওয়া বন্ধ করে দিলেই এই উপসর্গগুলো চলে যায়।

0 comments

Leave a Reply