চুলের যত্ন মনোসামাজিক সৌন্দর্য চর্চা

শীতের দিনে চুলের যত্নে

বছর ঘুরে আবার এল শীতের দিনগুলি। স্বাভাবিক ভাবেই তাপমাত্রা এবং আর্দ্রতা কমে যাওয়ার কারণে আমাদের এই সময়টায় শরীরে নিতে হয় বিশেষ যত্ন। কিন্তু শুধু ত্বকই নয় এই সময়ে আমাদের চুলের জন্যও প্রয়োজন অতিরিক্ত যত্নের। আসুন জেনে নিই শীতের দিনগুলিতেও কিভাবে চুলকে প্রাঞ্জল আর সুস্থ রাখা যায় –

১) চাই খুশকিমুক্ত চুল

শীতের দিনে আর্দ্রতা কমে যাওয়ায় মাথার ত্বক ময়েশ্চার হারায় ফলে কম বেশি সবাই এই সময়ে খুশকির সমস্যায় ভোগেন। খুশকি হলে অ্যান্টি ড্যানড্রাফ শ্যাম্পু ব্যবহার করলেই খুশকি থেকে মুক্তি পাওয়া যাবে একথা সত্য নয়। তাছাড়া অ্যান্টি ড্যানড্রাফ শ্যাম্পুগুলো অনেক ক্ষারীয় হয় ফলে শীতের সময়ে চুল আরও ময়েশ্চার হারিয়ে চুল এবং চুলের গোরা শুষ্ক এবং দুর্বল হয়ে যায়। আধা কাপ অলিভ অয়েল হালকা গরম করে এর সাথে এক ফালি লেবুর রস মিশিয়ে চুলের গোরায় গোরায় লাগান। ৪৫ মিনিট রেখে মাইল্ড কোন শ্যাম্পু ব্যবহার করে ধুয়ে ফেলুন। সপ্তাহে ৩ থেকে ৪ বার এভাবে চুলের যত্ন নিন।

২) পরিবর্তন করুন চুলের প্রসাধনী

গরমের দিনগুলিতে যে শ্যাম্পু এবং কন্ডিশনার ব্যবহার করেন তাই দিয়েই শীতকালটা পার করে দেবেন? এমন ভুল কখনোই করবেন না। গরমে আমাদের চুলকে রাখতে হয় ঝরঝরে এবং তেলমুক্ত আর শীতের সময়টাই চাই ময়েশ্চারাইজিং শ্যাম্পু এবং কন্ডিশনারের। তাছাড়া খেয়াল রাখুন এই সময়ে প্রয়োজন মৃদু ক্ষারীয় বা মাইল্ড শ্যাম্পু এবং কন্ডিশনারের যাতে চুলের ময়েশ্চার যেন শ্যাম্পুর সাথে ধুয়ে না যায়। তাই এর পর থেকে শীতের সময়টার জন্য শ্যাম্পু এবং কন্ডিশনার কেনার সময় mild এবং moisturizing লেবেল গুলি লেখা আছে কিনা দেখে নিন।

৩) ব্যবহার করুন হেয়ার ড্রায়ার

শীতের সময়ে গোসলের পর চুল শুকাতে অনেক সময় লেগে যায়, আবার ভেজা চুল নিয়ে বাইরে যাওয়াও সম্ভব নয়। তাই গোসলের পর তোয়ালেতে সব টুকু পানি মুছে হেয়ার ড্রায়ার দিয়ে মাঝে মাঝে চুল শুকাতে পারেন। হেয়ার ড্রায়ার সবসময় কম তাপমাত্রায় ব্যবহার করুন।

৪) চুলের রুক্ষতা দূর করতে

শীতের সময়ে চুল রুক্ষ হয়ে যায় এবং চুল একটার সাথে আরেকটা স্থির তড়িতের কারণে লেগে থাকে এবং পেঁচিয়ে যায়। চুলের এই সমস্যা থেকে রেহাই পেতে ব্যবহার করতে পারেন কোন leave on conditioner. এই ধরণের কন্ডিশনার চুলে দিয়ে ধোয়ার প্রয়োজন হয় না সাথে সাথে। এই ধরণের কন্ডিশনার শীতের সময়ে চুলে লাগিয়ে বেরিয়ে পড়ুন। ঘরে ফিরে চুল ধুয়ে নিলেই চলবে। তবে কখনোই কোন কন্ডিশনার চুলের গোরায় লাগাবেন না। তাছাড়া মাঝে মাঝে চুল কুসুম গরম পানিতে পরিষ্কার করুন।

৫) হট অয়েলের ম্যাসাজ

শীতের দিনগুলিতে সবচেয়ে বেশি উপকারে আসে হট অয়েলের ম্যাসাজ। নারিকেল তেল, অলিভ অয়েল, বাদাম তেল বা যেকোনো চুলে লাগানোর তেল হালকা গরম করে নিয়ে চুলের গোরায় গোরায় ম্যাসাজ করে করে লাগান। ৩০ থেকে ৪০ মিনিট রেখে চুল ধুয়ে ফেলুন।

৬) করুন ডিপ কন্ডিশন

শীতের সময়ে চুল শুষ্ক হয়ে যায় । এই সময়ে সাধারন শ্যাম্পু আর কন্ডিশনার যথেষ্ট নয়। মাঝে মাঝে প্রয়োজন চুলকে বাইরে থেকে ময়েশ্চার প্রদানের। বাজারে অনেক রকমের ডিপ কন্ডিশনার রয়েছে। মাঝে মাঝে চুল ধুয়ে ডিপ কন্ডিশনিং করুন। আপনি ঘরে বসেও ডিপ কন্ডিশনিং প্যাক তৈরি করতে পারেন। ১ টি ডিমের সাদা অংশ, ২ টেবিল চামচ অলিভ অয়েল এবং ২ টেবিল চামচ মধু মিশিয়ে ডিপ কন্ডিশনিং প্যাক বানাতে পারেন। এই প্যাক লাগিয়ে ৩০ মিনিট পর চুল ধুয়ে ফেলুন। শুষ্ক চুলের জন্য উপরের প্যাকের সাথে ১ টেবিল চামচ মেয়নেজ মেশাতে পারেন।

৭) ট্রিম করতে ভুলবেন না

শীতের দিনে চুল রুক্ষ হয়ে ফেটে যাওয়া খুবই সাধারন সমস্যা। তাই চুলে কোন রকমের ফাট দেখা দিলেই দেরি না করে চুল ছেঁটে নিন।

Photo Source – prothom-alo.com

About the author

Maya Apa Expert Team