মীনা হার্বাল মুলতানি ফেসপ্যাক রিভিউ

মীনা হার্বাল মুলতানি ফেসপ্যাক রিভিউ
মুলতানি মাটি ত্বকের যত্নে যুগ যুগ ধরে ব্যবহৃত হয়ে আসছে। আজকের প্রসাধনী পণ্যগুলো জনপ্রিয় হওয়ার আগে নারীরা মুলতানি মাটি, চন্দন ইত্যাদি ভেষজ ও প্রাকৃতিক উপাদান দিয়েই রুপচর্চা করতেন। যদিও এখন বেশির ভাগ নারীই রুপচর্চার জন্য ব্র্যান্ডের প্রসাধনীর দিকে ঝুকছেন তবুও অনেকেই তাদের রুপচর্চার উপাদান যতটা সম্ভব ভেষজ ও প্রাকৃতিক রাখতে চান।

মীনা হার্বাল নিয়ে এসেছে প্রাকৃতিক মুলতানি ফেসপ্যাক যা তাদের সুপারশপ ও অন্যান্য বিপণিবিতানে পাওয়া যাচ্ছে।

আসল মীনা হার্বাল পণ্য পেতে আপনার নিকটস্থ মীনাবাজার সুপারশপ হতে কিনুন।

দাম ও পরিমাণঃ ৭০ গ্রাম প্যাকের দাম ৭০ টাকা।

পণ্যটি যা দাবী করেঃ ঔষধ শিল্পে এবং পরিষ্কারক দ্রব্য হিসেবে শত শত বছরের কার্যকারিতার জন্য মুলতানি মাটি সভ্য জগতের এক উপকারী প্রাকৃতিক উপাদান। এই মাটি ত্বক থেকে প্রাকৃতিকভাবে ময়লা, ক্ষতিকারক দ্রব্য ও জীবাণু ধুয়ে ফেলে ত্বককে সুন্দর করে। এটি ত্বকের মৃত কোষ ও দাগ দূর করে এবং রক্ত চলাচল স্বাভাবিক রাখে। এতে ত্বক নতুন জীবন পায় এবং মসৃণ, নরম ও উজ্জ্বল হয়। “মীনা হার্বাল মুলতানি ফেসপ্যাক” সুনিয়ন্ত্রিত স্বাস্থ্যসম্মত পরিবেশে প্রস্তুত কর হয়।

উপাদানঃ মুলতানি মাটি

টেক্সচারঃ এই ফেসপ্যাকটির গুঁড়ো হালকা বাদামি রঙয়ের। আপনার ত্বক যদি তৈলাক্ত হয় তাহলে পানি আর যদি শুষ্ক হয় তাহলে তেল দিয়ে প্যাক তৈরি করে নিন।

আমাদের এক্সপার্ট যা বলেনঃ
মুলতানি মাটিতে কয়েকটি খনিজ আছে যেমন- সিলিকা, ম্যাগনেসিয়াম, লৌহ ও এলুমুনিয়াম। এর আছে দারুন শক্তিশালী শোষণ ক্ষমতা তাই এটি তৈলাক্ত ত্বকের জন্য সর্বোত্তম। প্যাকটি ব্যবহার করার আগে নিচের টিপসগুলো দেখে নিন।

মুখের তেলতেলে ভাব কমানোর জন্য কুসুমগরম পানিতে মুখ ধুয়ে নিন। তারপর এই প্যাকটি লাগান। এতে লোমকূপগুলো খুলে যায় এবং মুলতানি মাটি ত্বক থেকে তেল শুষে নেয়।

আপনার ত্বকের ধরন যেমনই হোক না কেন, ধুয়ে ফেলার পর আপনার ত্বক কিছুটা শুষ্ক লাগবে। তাই মুলতানি মাটি দিয়ে ধোয়ার পর ময়েশচারাইজার ব্যবহার করুন।

মুলতানি মাটি ত্বকে কোনো পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া সৃষ্টি করে না। কিন্তু ত্বকে এটি ৩০ মিনিটের বেশি রাখা উচিৎ নয়। এর চেয়ে বেশিক্ষণ রাখলে তা আপনার ত্বককে একেবারে শুষ্ক করে ফেলবে এবং ত্বক ফুলে উঠে জ্বালাপোড়া করবে।


বিভিন্ন ধরনের ত্বকে ব্যবহারের টিপসঃ

তৈলাক্ত ত্বকেঃ ১ টেবিলচামচ মুলতানি মাটির সাথে ১ টেবিলচামচ চন্দন গুঁড়ো ও সামান্য গোলাপজল মিশিয়ে নিন। এই প্যাকটি ত্বকে ২০ মিনিট রেখে পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

ব্রণের জন্যঃ ১ টেবিলচামচ মুলতানি মাটির সাথে ১ টেবিলচামচ ময়দা বা বেসন ও ১ টেবিলচামচ দুধ মিশিয়ে নিন। সামান্য একটু পানি দিয়ে প্যাক তৈরি করে নিন। এবার এটি মুখে ১৫-২০ মিনিট রেখে পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

রোদে পোড়া ত্বকের জন্যঃ ২ টেবিলচামচ টক দইয়ের সাথে ১ টেবিলচামচ মুলতানি মাটি মিশিয়ে নিন। রোদে পোড়া অংশে লাগিয়ে ২০ মিনিট রাখুন। ঠাণ্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

স্বাভাবিক ত্বকের জন্যঃ স্বাভাবিক ত্বকের জন্য দরকার এমন প্যাক যাতে একই সাথে তেল শোষণ ও ময়েশচারাইজিং করতে পারবে। ১ টেবিলচামচ মুলতানি মাটির সাথে ১ টেবিলচামচ গোলাপজল ও আধা টেবিলচামচ মধু মিশিয়ে নিন। এটি ত্বকে লাগিয়ে শুকিয়ে যাওয়া পর্যন্ত অপেক্ষা করুন। এরপর পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

শুষ্ক ত্বকের জন্যঃ দুধের সর বা ডিমের কুসুম অথবা কয়েক ফোটা আমন্ড বা অলিভ অয়েল দিয়ে ফেস প্যাক তৈরি করে নিন। মুখে ২০ মিনিট রেখে ধুয়ে ফেলুন।

মিশ্র ত্বকের জন্যঃ মিশ্র ত্বকের যত্ন নেয়া সহজ কাজ নয়। T-জোন, মুখের কেন্দ্র, নাক, থুতনি ও কপাল তৈলাক্ত থাকে কিন্তু অন্যান্য অংশ শুষ্ক থাকে ও চামড়া উঠে যায়। উপরে উল্লেখিত তৈলাক্ত ত্বকের প্যাক মুখের T-জোন অংশে ব্যবহার করুন। এরপর একই প্যাকে কয়েক ফোটা আমন্ড অয়েল মিশিয়ে শুষ্ক অংশে লাগিয়ে নিন।


সুবিধাঃ

  • তৈলাক্ত ত্বকের জন্য খুবই ভালো।
  • অন্যান ধরনের ত্বকেও ব্যবহার করা যায়
  • এমনভাবে লোমকূপের আকার কমায় যা চোখে পড়বে
  • ত্বক থেকে ময়লা দূর করে
  • ব্রণ সারাতে কার্যকরী
  • সস্তা এবং সহজলভ্য
  • কোনো পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া নেই


অসুবিধাঃ

এটি দিয়ে মুখ ধোয়া ফেসওয়াশের তুলনায় সময়সাপেক্ষ ব্যাপার। ফেসওয়াশ দিয়ে কয়েক মিনিটেই মুখ ধোয়া যায়।

রেটিংঃ ৫/৫

আমাদের এক্সপার্টের মতামতঃ এটি সব ধরনের ত্বকে ব্যবহার করা যাবে। নিয়মিত ব্যবহারের জন্য এটি একটি দারুন ফেস প্যাক।