কৈশোর স্বাস্থ্য বয়ঃসন্ধিকাল

বয়ঃসন্ধির উপসর্গসমূহ

Written by Maya Expert Team

 

বয়ঃসন্ধি কালে যেসব শারীরিক পরিবর্তন ঘটে সেগুলো বেশ কয়েকটি ধাপে ঘটে। এগুলোকে ট্যানার ষ্টেজ (Tanner stages) বা ধাপ বলা হয়। শিশু উন্নয়ন বিষেশজ্ঞ জেমস মৌরিলিয়ান ট্যানারের নামে এই ধাপগুলোর নামকরন করা হয়েছে। তিনিই প্রথম এই ধাপগুলো সনাক্ত করেন।

ট্যানার ষ্টেজ থেকে বেড়ে ওঠার সময়ের গড় একটা মাপ পাওয়া যায়, তবে শিশু ও কিশোর-কিশোরীদের এই সময়কালের মধ্যে সুনির্দিষ্ট পার্থক্য দেখা দিতে পারে। আপনি বয়ঃসন্ধিকালের কোন একটি ধাপে আপনার বন্ধুদের আগে বা পরে পৌঁছলে চিন্তার কোন কারন নেই।

ট্যানারের প্রথম ধাপ

টানার স্টেজের প্রথম ধাপ হল বয়ঃসন্ধিতে পৌঁছনোর আগমুহূর্তে কী কী ঘটে তার বিবরণ। এগুলোকে অনেকে বয়ঃসন্ধিপূর্ব পরিবর্তন বলে।

মেয়েদের ক্ষেত্রে

· পরিবর্তনগুলো সাধারণত ৮-১০ বছর বয়সের মধ্যে ঘটে, তবে ৬ বা ৭ বছর বয়সেও এটি শুরু হতে পারে।

· এসময় আপনি বছরে ৫-৬ সে.মি. (২-২.৪ ইঞ্চি) করে লম্বা হতে থাকবেন

· আপনার স্তনবৃন্ত হালকা ফুলে উঠতে পারে

· আপনার ডিম্বাশয় বৃদ্ধি পাওয়া শুরু হবে

ছেলেদের ক্ষেত্রে

· পরিবর্তনগুলো সাধারণত ৯-১১ বছর বয়সের মধ্যে হয়

· এসময় আপনি বছরে ৫-৬ সে.মি. (২-২.৪ ইঞ্চি) করে লম্বা হতে থাকবেন

ট্যানারের দ্বিতীয় ধাপ

মেয়েদের ক্ষেত্রে

· সাধারণত ১১ বছর বয়সের আশেপাশে ঘটে

· আপনার অ্যারেওলা (স্তনবৃন্তের চারপাশের চামড়া) ফুলে ওঠা শুরু করবে

· যৌনাঙ্গের উপর চুল গজানো শুরু হবে

· ভগাঙ্কুর (যোনিপথের মুখে মটর দানার আকৃতির একটি সংবেদনশীল টিস্যুর পিণ্ড) এবং জরায়ু বড় হতে শুরু করবে।

· আপনি বছরে ৭-৮ সে.মি. করে লম্বা হতে শুরু করবেন।

ছেলেদের ক্ষেত্রে

· সাধারণত ১২ বছর বয়সের কাছাকাছি সময়ে শুরু হয়

· আপনার অন্ডথলি (যেটিতে অণ্ডকোষ থাকে) আরও পাতলা এবং লালচে হতে থাকবে। আপনার অণ্ডকোষের আকার বৃদ্ধি পাবে।

· পুরুষাঙ্গের গোড়ায় পাতলা চুল উঠতে শুরু করবে

· এসময় আপনার দেহের চর্বি কমে যাওয়ার কথা, কিন্তু আপনি বছরে ৫-৬ সে.মি. (১.৯-২.৩ ইঞ্চি) করে লম্বা হতে থাকবেন

ট্যানারের তৃতীয় ধাপ

মেয়েদের ক্ষেত্রে

· সাধারণত ১২ বছর বয়সের পর শুরু হয়

· আপনার অ্যারেওলা স্ফিত হতে থাকবে এবং হয়ত এসময় আপনার প্রথম ব্রা কিনতে হবে।

· আপনার যৌনাঙ্গের চারপাশের চুল আরও কড়া এবং কোঁকড়ানো হয়ে উঠবে এবং আপনার বগলেও চুল গজানো শুরু হবে

· আপনার চেহারায় ও পিঠে ব্রণ উঠতে পারে

· এসময় আপনি বছরে ৮ সে.মি. (৩.২ ইঞ্চি) করে লম্বা হতে থাকবেন, যা বেড়ে ওঠার সর্বোচ্চ গতি

ছেলেদের ক্ষেত্রে

· সাধারণত ১৩ বছর বয়সের পরে শুরু হয়

· আপনার পুরুষাঙ্গের দৈর্ঘ্য এবং আকার বৃদ্ধি পাবে এবং অণ্ডকোষও বড় হতে থাকবে

· আপনার যৌনাঙ্গের চারপাশের চুল আরও ঘন এবং কোঁকড়ানো হয়ে যাবে, এবং পুরুষাঙ্গের উপরের চামড়ায়ও তা গজানো শুরু হবে

· এসময় আপনার বুক হালকা স্ফিত হওয়ার কথা। এটি সম্পূর্ণ স্বাভাবিক এবং এ থেকে আপনার মেয়েদের মত স্তন হয়ে যাওয়ার ভয় নেই

· এসময় হয়ত আপনার ‘স্বপ্নদোষ’ শুরু হবে যাতে ঘুমের মধ্যে নিজের অজান্তে বীর্যপাত ঘটে

· আপনার গলার স্বর ‘ভেঙে’ যাবে। এতে অল্প কিছু দিনের জন্য আপনার গলার স্বর পরিবর্তিত হয়ে যাবে

· আপনার মাংসপেশির আকার বৃদ্ধি পাবে; আপনি বছরে ৭-৮ সে.মি. (২.৮-৩.২ ইঞ্চি) করে লম্বা হতে থাকবেন

ট্যানারের চতুর্থ ধাপ

মেয়েদের ক্ষেত্রে

· সাধারণত ১৩ বছর বয়সে শুরু হয়

· আপনার স্তন ধীরে ধীরে আরও পূর্ণ আকৃতি লাভ করতে থাকে এবং আপনার স্তনবৃন্ত ও অ্যারেওলা স্ফীত হয়ে স্তনের ওপর আরও একটি ঢিপির মত তৈরি করে (আপনার স্তন পুরো বৃদ্ধিপ্রাপ্ত হলে এই ঢিপি আর থাকে না)

· আপনার যৌনাঙ্গের চারপাশের চুল এসময় দেখতে আরও প্রাপ্তবয়স্কদের চুলের মত হয়ে যায়, কিন্তু আপনার জঙ্ঘার ভিতরের দিকে ছড়িয়ে পড়ে না

· এসময় আপনার প্রথমবার মাসিক হওয়ার কথা এবং এই ধাপের শেষ দিকে নিয়মিত মাসিক শুরু হওয়া উচিত

· আপানার বেড়ে ওঠার গতি কমে গড়ে প্রতি বছর ৭ সে.মি. (২.৮ ইঞ্চি)-তে নেমে আসবে

ছেলেদের ক্ষেত্রে

· সাধারণত ১৪ বছর বয়সে শুরু হয়

· আপনার পুরুষাঙ্গ এবং অণ্ডকোষ বড় হতে থাকবে এবং আপনার অণ্ডথলির রঙ আরও কালচে হয়ে যাবে

· আপনার যৌনাঙ্গের চারপাশের চুল এসময় দেখতে আরও প্রাপ্তবয়স্কদের চুলের মত হয়ে যায়, কিন্তু আপনার জঙ্ঘার ভিতরের দিকে ছড়িয়ে পড়ে না

· এ সময় আপনার বগলে চুল ওঠার কথা

· আপনার গলার স্বর সবসময়ের জন্য বদলে যাবে

· চেহারায় ব্রণ উঠতে পারে

ট্যানারের পঞ্চম ও শেষ ধাপ

মেয়েদের ক্ষেত্রে

· সাধারণত বয়স ১৪ বছর হওয়ার ঠিক পর পর হয়

· আপনার স্তনবৃন্তের চারপাশের চামড়া স্ফীতি অদৃশ্য হয়ে যাবে এবং স্তনের আকার পূর্ণ বয়স্কদের মত হয়ে যাবে

· আপনার যৌনাঙ্গের চারপাশের চুল জঙ্ঘার ভিতরের দিকে ছড়িয়ে পড়বে

· আপনার যৌনাঙ্গের বৃদ্ধি এই ধাপের শেষে পূর্ণতা লাভ করবে

· ১৬ বছর বয়সে আপনার শারীরিক বৃদ্ধি বন্ধ হয়ে যাবে এবং আপনার শরীর পূর্ণতা লাভ করবে

ছেলেদের ক্ষেত্রে

· ১৫ বছর বয়সের কাছাকাছি সময়ে শুরু হয়

· আপনার পুরুষাঙ্গ দেখতে প্রাপ্তবয়স্কদের মত হবে এবং যৌনাঙ্গের চারপাশের চুল জঙ্ঘার ভিতরের দিকে ছড়িয়ে পড়বে

· এ সময় আপনার দাড়ি-মোচ গজানো শুরু হবে এবং শেভ করা শুরু করতে হতে পারে

· আপনার শারীরিক বৃদ্ধির গতি কমে যাবে এবং ১৭ বছর বয়সের কাছাকাছি সময়ে এটি বন্ধ হয়ে যাওয়ার কথা (তবে আপনার মাংসপেশি বৃদ্ধি পেতে থাকতে পারে)

· বেশিরভাগ ছেলেই ১৮ থেকে ১৯ বছর বয়সের মধ্যে শারীরিকভাবে পরিণত আকার লাভ করে

মুল পরিবর্তনসমূহ

ব্রন

বয়ঃসন্ধি কালে ছেলে এবং মেয়ে উভয়ের শরীর টেসটোস্টেরন হরমোন দ্বারা বেশি প্রভাবিত হয়। টেসটোস্টেরন চামড়ার উপর ছোট ছোট গ্রন্থি তৈরি করে যা থেকে অতিরিক্ত তেল তৈরি হয়। মৃত চামড়ার কারণে পশমের গোড়া বন্ধ হয়ে যেতে পারে। এই বন্ধ পশমের গোড়ার নিচে অতিরিক্ত তেল জমতে থাকে যা থেকে সাদা বা কাল দাগ তৈরি হতে পারে।

হরমোন পরিবর্তনের কারনে আপনার চামড়ার এসিডের পরিমাণ পরিবর্তিত হয়, যার কারনে ব্যাকটেরিয়া জন্মাতে পারে। ব্যাকটেরিয়া বন্ধ হয়ে যাওয়া চুলের গোড়ায় সংক্রমণ ঘটাতে পারে যা থেকে দাগ বা গোটা তৈরি হতে পারে।

হালকা থেকে মাঝারি ধরনের ব্রনের চিকিৎসায় অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল ক্রিম ব্যবহার করা যেতে পারে। আপনার ব্রন আরও মারাত্মক হলে অ্যান্টিবায়োটিক ট্যাবলেট খেতে দেয়া হতে পারে। ব্রন সম্বন্ধে আরও তথ্য জানুন এখানেঃ।

শরীরের গন্ধ

বয়ঃসন্ধি কালে আপনার শরীরের বগল, স্তন, এবং যৌনাঙ্গের আশেপাশে বড় বড় ঘর্মগ্রন্থি তৈরি হয়। এগুলোকে এপোক্রিন গ্রন্থি (Apocrine glands) বলে। এসব গ্রন্থি কোনধরনের চাপ (stress), আবেগ বা যৌন উত্তেজনার কারনে ঘাম বের করে। কিছু কিছু সময় অতিরিক্ত ঘামের কারনে শরীরে দুর্গন্ধ সৃষ্টি হতে পারে।

মাসিক

সাধারণত ১০ থেকে ১৬ বছর বয়সের মধ্যে মেয়েদের মাসিক শুরু হয়। বেশিরভাগ সময়ই এটি শুরু হয় ১২-১৩ বছর বয়সের মধ্যে। মেয়েদের মাসিক ৪৫ থেকে ৫৫ বছর বয়সের মধ্যে মেনোপজ (menopause) শুরুর আগ পর্যন্ত মাসিক চলতে থাকবে।

মসিক শুরু হওয়ার আগ পর্যন্ত আপনার কয়েকটি উপসর্গ দেখা দিতে পারেঃ

· স্তনে ব্যাথা

· খিটমিটে মেজাজ

· পিঠ ব্যাথা

· বিভিন্ন দাগ দেখা দেয়া

· খুবই আবেগি বা মন খারাপ হয়ে যাওয়া

মাসিক শুরু হয়ে গেলে এই উপসর্গগুলো আর থাকে না। অনেক মেয়ে এবং মহিলারা তলপেট, পিঠ এবং যোনিপথে ব্যাথা অনুভব করেন। এগুলোকে অনেক সময় মাসিকের ব্যাথা বলা হয়। প্যারাসিটামল খেলে এই ব্যাথা কমতে পারে।

 

 

মানসিক ও আচরণগত পরিবর্তন

অনেকের কাছে বয়ঃসন্ধি কালটা খুবই কঠিন একটা সময় মনে হয়। আপনাকে শরীরের বিভিন্ন পরিবর্তন এবং এর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়াগুলোর (যেমনঃ ব্রন এবং দুর্গন্ধ) সাথে খাপ খাওয়ানোর চেষ্টা করতে হয়। কিন্তু তা করার মত যথেষ্ট আত্মসচেতনতা তখনও গড়ে ওঠে না ।

বয়ঃসন্ধি কাল খুব আনন্দের সময়ও হতে পারে, কারন এসময় আপনার নতুন ধরনের আবেগ-অনুভূতি তৈরি হয়। তবে আবেগের দ্রুত পরিবর্তনের ফলে নিম্নোক্ত প্রভাবগুলো দেখা যেতে পারেঃ

· কোন কারন ছাড়া মুড বদলানো

· নিজের সম্বন্ধে খুব খাটো ধারনা তৈরি হওয়া

· আক্রমনাত্মক হয়ে ওঠা

· বিষণ্ণতা

এই অনুভূতিগুলো বয়ঃসন্ধিকালে বেড়ে ওঠার সময় খুবই স্বাভাবিক। তবে এগুলো আপনার জীবনকে খুব বেশি প্রভাবিত করলে আপনি আপনার খুব কাছের কারো সাথে (যেমন বন্ধু বা আত্মীয়) কথা বলতে পারেন, অথবা ডাক্তারের কাছে যেতে পারেন।

About the author

Maya Expert Team

Leave a Comment