অনকোলজি মুখের ক্যান্সার

মুখের ক্যান্সার থেকে সৃষ্ট জটিলতাসমূহ

মুখের ক্যান্সার থেকে সৃষ্ট জটিলতাসমূহ

খাবার গলধঃকরণে অসুবিধা

খাদ্য গিলতে সমস্যাকে মেডিক্যালের ভাষায় বলে ডিসফ্যাজিয়া। খাদ্য ও তরল পানীয় গলধঃকরণের প্রক্রিয়াটি কয়েকটি পেশীর মিথস্ক্রিয়ার উপর নির্ভর করে, যা সহজেই বিপর্যস্ত হতে পারে।

সার্জারি ও রেডিওথেরাপি আপনার জিহ্বা, মুখ বা গলায় প্রভাব ফেলতে পারে, যার ফলশ্রুতিতে ডিসফ্যাজিয়া হতে পারে। ডিসফ্যাজিয়া একটি সম্ভাব্য জটিল রোগ হিসাবে দেখা দিতে পারে। কেননা অপুষ্টিতে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকির পাশাপাশি এ সমস্যাতে ছোট খাদ্য কণা শ্বাসনালীতে ঢুকে পড়ে ফুসফুসে আটকে যাওয়ার সম্ভাবনাও থাকে। খাদ্যকণা আটকে যাওয়ার ফলে অ্যাসপিরেশন নিউমোনিয়া নামক বুকের সংক্রমণের সৃষ্টি হতে পারে।

যদি আপনি উন্নত দেশে চিকিৎসা গ্রহণ করে থাকেন এবং খাদ্য গিলতে অসুবিধা বোধ করে থাকেন, তাহলে একজন স্পিচ ও ল্যাংগুয়েজ থেরাপিস্টের (এসএলটি) এর সাহায্য নিতে পারেন যিনি আপনার খাদ্য গলধঃকরণের সমস্যা সৃষ্টিকারী কারনসমূহ চিহ্নিত করতে পারবেন। এর জন্য উক্ত থেরাপিস্ট যে পদ্ধতি অনুসরণ করবেন তার নাম ভিডিওফ্লোরোস্কোপি। এই পদ্ধতিতে এক ধরণের বিশেষ রঞ্জক পদার্থ আপনার খাদ্য ও পানিতে মিশিয়ে আপনাকে খেতে দেয়া হবে। এই রঞ্জক পদার্থ খাদ্য গলধঃকরণে ব্যবহৃত পেশীসমূহকে এক্সরের মাধ্যমে দৃশ্যমান করে তুলে, ফলে থেরাপিস্ট আপনার এক্সরে পরীক্ষা করে বুঝতে পারবেন খাদ্যকণা ফুসফুসে ঢুকে পড়ার কোনো সুযোগ আছে কী না । এখানে অর্থাৎ বাংলাদেশে কোনো এসএলটি স্পিচ ও ল্যাংগুয়েজ থেরাপিস্ট খুঁজে না পেলেও একই প্রক্রিয়ায় একজন ইএনটি (নাক, কান, গলা বিশেষজ্ঞ) সার্জন দ্বারা পরীক্ষা করে নিতে পারবেন। একই সেবা একজন ইএনটি সার্জন এবং একজন ফিজিওথেরাপিস্ট প্রদান করতে পারবেন যারা এই পদ্ধতি পরিচালনায় অভিজ্ঞ ।

খাদ্যকণা ফুসফুসে প্রবেশ করার কোনো ঝুঁকি থাকলে, সাময়িকভাবে একটি খাবারের নল আপনার নাক দিয়ে পাকস্থলিতে প্রবেশ করানো হবে, তারপর সেই নল দিয়ে খাবার সরাসরি আপনার পাকস্থলিতে ঢুকিয়ে দেয়া হবে। কীভাবে খাবার সঠিকভাবে গলধঃকরণ করতে হবে, তা একজন ফিজিওথেরাপিস্ট আপনাকে পুনরায় শিখিয়ে দিবেন।

এই অনুশীলন শিখে নেয়ার সাথে সাথে আপনার খাবার গলধঃকরণের ক্ষমতা উন্নত হতে থাকবে এবং ক্ষতিগ্রস্থ টিস্যুগুলো আরোগ্য লাভ করতে শুরু করবে। তবে, আপনার খাদ্য গলধঃকরণের স্বাভাবিক ক্ষমতা পুরোপুরি আগের অবস্থায় ফিরে না আসার সম্ভাবনা আছে।

কিছু কিছু ক্ষেত্রে, খাদ্য গলধঃকরণ সহজ করতে আপনার খাদ্য তালিকায় পরিবর্তন আনতে হতে পারে। আপনাকে সম্পূর্ণরূপে তরল খাদ্য গ্রহণের পরামর্শ দেয়া হতে পারে। একজন পুষ্টিবিদ আপনাকে বিশেষ খাদ্য সংক্রান্ত পরামর্শ দিতে পারেন, তবে হাসপাতাল থেকে চলে আসার সময় প্রদত্ত ডিসচার্জ স্লিপ বা প্রেসক্রিপশনে আপনি কী কী খাবার খেতে পারবেন সে সম্পর্কে যথেষ্ট বিস্তারিত বর্ণনা থাকবে।

কথা বলা

খাদ্য গলধঃকরণ প্রক্রিয়ার মতোই আপনার কথা বলার ক্ষমতাও সম্পূর্ণরূপে কয়েকটি জটিল পেশী, যেমন জিহ্বা, দাঁত, ঠোঁট এবং মুখের নরম তালু (মুখের শেষপ্রান্তে অর্থাৎ তালুর পশ্চাৎভাগের টিস্যু) দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হয়ে থাকে। রেডিওথেরাপি ও সার্জারি এ প্রক্রিয়ার উপর প্রভাব ফেলতে পারে এবং কয়েকটি নির্দিষ্ট শব্দ উচ্চারণে সমস্যা সৃষ্টি করতে পারে। জটিল কয়েকটি কেসে দেখা যায় যে, আক্রান্ত ব্যক্তি তার নিজের কথা নিজেই বুঝতে পারছে না।

একজন ফিজিওথেরাপিস্ট স্বরের মান উন্নয়নে কয়েকটি অনুশীলন শিক্ষা দিবেন যা মৌখিক যোগাযোগ ক্ষমতাকে ত্বরান্বিত করবে। সাথে সাথে তিনি শব্দ উচ্চারণের নতুন পদ্ধতি শিখিয়ে দিবেন। এমন একজন বিশেষজ্ঞ ফিজিওথেরাপিস্ট যদি খুঁজে পান, যিনি স্পীচ ও ভাষা নিয়ে কাজ করে থাকেন, তাহলে তিনি আপনার উচ্চারণ শিক্ষা আরো উন্নত করে তুলতে পারবেন।

মানসিক প্রভাব

মুখের ক্যান্সারে আক্রান্ত নিয়ে বেচে থাকা মানুষকে অনেক মানসিক প্রতিকূলতার মধ্য দিয়ে জীবন যাপন করতে হয়। অনেক আক্রান্ত ব্যক্তিই জীবনে প্রচুর চরাই-উতরাই পার হয়ে থাকেন বলে স্বীকার করে থাকেন।

উদাহরণস্বরূপ, চিকিৎসা গ্রহণের সময় আপনি মানসিকভাবে দুর্বল থাকতে পারেন, আবার চিকিৎসা গ্রহণে ক্যান্সার কমতে থাকলে আপনি ভালো অনুভব করতে পারেন। তারপর পার্শ্ব-প্রতিক্রিয়াসমূহের সাথে মানিয়ে চলা বা চিকিৎসা পরবর্তী প্রভাবে আপনি আবার খারাপ বোধ করতে পারেন।

এই ধরণের মানসিক চাপ অনেক সময় বিষণ্ণতার সৃষ্টি করতে পারে। বিষণ্ণতাবোধ করার কয়েকটি লক্ষণ আছে, যেমনঃ

  • বিগত মাসগুলোতে মানসিকভাবে ভেঙ্গে পড়া বা হতাশা বোধ করা
  • আপনি যেসকল জিনিস আগে উপভোগ করতেন সেগুলোর প্রতি আগ্রহ হারিয়ে ফেলা

যদি আপনি বিষণ্ণতায় ভোগেন তাহলে আপনার ডাক্তারের সাথে কথা বলুন। বিষণ্ণতা দূর করার জন্য বিভিন্ন ধরণের কার্যকর চিকিৎসা পদ্ধতি আছে, যেমন অ্যান্টাইডপ্রেসেন্ট ওষুধ এবং থেরাপি গ্রহণ, যেমন কগনিটিভ বিহেভ্যিইয়ার থেরাপি (সিভিটি)। আপনাকে একজন সাইকোলোজিস্ট (মনোরোগবিশেষজ্ঞ) বা সাইক্রিয়াটিস্টের পরামর্শ নিতে বলা হতে পারে।

About the author

Maya Apa Expert Team